নঈম নিজামকে কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মং: গার্মেন্ট সেক্টরে নিরাপদ কর্মপরিবেশ দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

5_37391:: এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক
যুক্তরাষ্ট্র সফররত দেশের সর্বাধিক প্রচারিত ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’-এর সম্পাদক নঈম নিজাম সাক্ষাৎ করলেন যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের নিুকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটির প্রভাবশালী সদস্য কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং-এর সঙ্গে। মঙ্গলবার সকালে কংগ্রেসম্যানের ডিস্ট্রিক্ট অফিসে হুদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে আধ ঘণ্টা স্থায়ী এ সাক্ষাতে কংগ্রেসওম্যানকে বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষের অভিনন্দন পৌঁছে দেন নঈম নিজাম। নিউইয়র্কে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির একজন সংগঠক এনআরবি নিউজকে বলেন, কংগ্রেসওম্যানের সঙ্গে এই প্রথম একজন বাংলাদেশি সৌজন্য সাক্ষাৎ করলেন যিনি কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করতে আসেননি কিংবা বিশেষ কোনো কাজের তদ্বির করতেও বলেননি। এ জন্য কংগ্রেসওম্যান অভিভূত।

সাভারের রানা প্লাজা ধসের পর আমেরিকান কোম্পানিগুলো যখন বাংলাদেশ থেকে হাত গুটিয়ে নিতে চেয়েছিল, সে সময় এই কংগ্রেসওম্যান ওয়ালমার্ট, গ্যাপসহ আমেরিকান এপারেল ফুটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশন ও প্রধান প্রধান আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে গত বছরের মে দিবসে চিঠি দিয়েছিলেন। সে চিঠিতে তিনি অবিলম্বে বাংলাদেশের গার্মেন্ট শ্রমিকদের সার্বিক উন্নয়ন ও কল্যাণে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানান। যাদের রক্ত-ঘামে তৈরি করা পোশাক এনে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার মুনাফা অর্জন করা হয়েছে, সেইসব শ্রমিকের নিদারুণ দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান গ্রেস মেং। গ্রেস মেং ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সরকারিভাবে উদযাপনের স্বার্থে কংগ্রেসে একটি বিল উঠিয়েছেন।

বাংলাদেশিসহ দক্ষিণ এশিয়ানদের টেলিফোনে নানা ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং বকেয়া ট্যাক্সের কারণে তাদের গ্রেফতার করা হবে- এমন হুমকিদাতা প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নিতে একটি বিল উত্থাপন করেন এই কংগ্রেসওম্যান, তা যথারীতি পাসও হয়েছে। নিউইয়র্কসহ বিভিন্ন সিটিতে বাংলাদেশিসহ মুসলিম-আমেরিকানরা ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক হামলার শিকার হচ্ছেন। এ ধরনের হামলায় লিপ্তদের পাকড়াও এবং মুসলিম-আমেরিকানসহ এশিয়ান ইমিগ্র্যান্টদের নিরাপত্তা জোরদারের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান নিউইয়র্ক থেকে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়নে জয়ী হওয়া এই কংগ্রেসওম্যান। কংগ্রেসনাল বাংলাদেশ ককাসের সদস্যা গ্রেস মেং প্রবাসী বাংলাদেশিদের যে কোনো প্রয়োজনে সাড়া দেওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের যে কোনো সংকট উত্তরণে মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে দেন-দরবার করেন। এসব তথ্য উপস্থাপন করে নঈম নিজাম গভীর কৃতজ্ঞতা জানান কংগ্রেসওম্যানের প্রতি। একই সঙ্গে তাকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

বাংলাদেশের জন্য নিরন্তরভাবে কাজ করায় গোটা বাংলাদেশ তার প্রতি কৃতজ্ঞ বলেও উল্লেখ করেন নঈম নিজাম।দূরদেশের পাঠকনন্দিত পত্রিকার সম্পাদকের মুখে নিজের কাজের প্রশংসা শুনে খুশি হন গ্রেস মেং। এ সময় গ্রেস মেং উল্লেখ করেন, আমি বাংলাদেশের গার্মেন্ট সেক্টরে নিরাপদ কর্মপরিবেশ দেখতে আগ্রহী। কংগ্রেসে সহকর্মীদের সঙ্গে বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নে যতটা সম্ভব কাজ করে যাচ্ছি। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, নিউইয়র্কে আমার নির্বাচনী এলাকার বাংলাদেশি-আমেরিকানরা সবসময় আমার পাশে রয়েছেন। এ জন্য আমি বাংলাদেশের কাজে উৎসাহবোধ করি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সফরের ইচ্ছা রয়েছে আমার। সময় ও সুযোগ হলেই ঢাকা দেখতে যাব।এ সময় নঈম নিজাম তাকে বাংলাদেশের নকশি কাঁথা উপহার দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেই কাঁথার মূল্য ২৫ ডলারের বেশি হওয়ায় কংগ্রেসওম্যান তা গ্রহণ করেননি।

একইদিন বিকালে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসে বাংলাদেশ ককাসের প্রতিষ্ঠাতা কো-চেয়ার কংগ্রেসম্যান যোসেফ ক্রাউলির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন নঈম নিজাম। বাংলাদেশের জন্য এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির কংগ্রেসম্যান এবং প্রতিনিধি পরিষদের হুইপ যোসেফ ক্রাউলি। কংগ্রেসম্যান ক্রাউলিকেও বাংলাদেশের জনগণ এবং ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান নঈম নিজাম।